রোববার   ০৯ মে ২০২১   বৈশাখ ২৫ ১৪২৮   ২৭ রমজান ১৪৪২

  যশোরের আলো
সর্বশেষ:
যশোরে দুইজনের দেহে মিলেছে করোনার ভারতীয় ধরন খালেদা জিয়াকে বিদেশে নেয়ার প্রয়োজন নেই : হানিফ ফরিদপুরে ভাইয়ের গুলিতে ভাই আহত চুয়াডাঙ্গার আরও ৩৮৪ কর্মহীন-অসহায়দের মধ্যে খাদ্য বিতরণ দামুড়হুদা সীমান্ত এলাকা থেকে কোটি টাকার মাদকদ্রব্য জব্দ ভারতীয় ড্রাইভারদের অবাধ বিচরণ, ঝুঁকিতে বেনাপোলবাসী মেহেরপুরে দুই হাজার হেক্টর জমিতে কচু চাষ ফরিদপুরে দুঃস্থদের মাঝে ঈদবস্ত্র বিতরণ ফেরি বন্ধ, দৌলতদিয়ায় পারের অপেক্ষায় শত শত যাত্রী কুমারখালীতে দুস্থদের জন্য বিনামূল্যে পোশাকের দোকান বোয়ালমারীতে ইফতার সামগ্রী বিতরণ স্বেচ্ছাসেবক লীগের মেহেরপুরে অসহায় মানুষের মাঝে যুবলীগের সবজি বিতরণ চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল থেকে অক্সিজেন সিলিন্ডার গায়েব!
৪৫

কুমারখালীর রুমির মেডিকেলে লেখাপড়ার দায়িত্ব নিলেন এমপি জর্জ

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১১ এপ্রিল ২০২১  

মেডিকেলে চান্স পেয়েও টাকার অভাবে ভর্তি অনিশ্চিত রাবেয়া আক্তার রুমির লেখাপড়ার দায়িত্ব নিয়েছেন কুষ্টিয়া-৪ (কুমারখালী-খোকসা) আসনের সংসদ সদস্য ও যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জ। শুক্রবার (০৯) তিনি কুমারখালী শহরের গোডাউন বাজার এলাকায় নিজ বাড়িতে রুমির পরিবারকে ডেকে নেন। তাদের সঙ্গে কথা বলে রুমির পড়ালেখার দায়িত্ব নেওয়ার কথা জানান এই সংসদ সদস্য। 

২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষের এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে রংপুর মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন কুষ্টিয়ার কুমারখালী পৌরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ডের শেরকান্দি গ্রামের রমজান আলীর বড় মেয়ে রাবেয়া আক্তার রুমি। তারা দুই বোন ও এক ভাই। ছোট বোন সপ্তম শ্রেণিতে ও ছোট ভাই প্রথম শ্রেণিতে পড়ে। তার বাবা রমজান আলী শিঙাড়া বিক্রি করে সংসার চালান। তার পক্ষে মেয়েকে মেডিকেলে পড়ানোর সামর্থ্য নেই। ফলে রুমির মেডিকেলে ভর্তি অনিশ্চিত হয়ে পড়ে। 

এ নিয়ে গত মঙ্গলবার (০৬ এপ্রিল) ‘শিঙাড়া বিক্রেতার মেয়ে মেডিকেলে চান্স পেয়েও ভর্তি অনিশ্চিত’ শিরোনামে বিভিন্ন অনলাইন নিউজ পোর্টাল সংবাদ প্রকাশিত হয়। সংবাদটি স্থানীয় সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জের চোখে পড়ে। তিনি রাবেয়া আক্তার রুমির পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। পরে তার পরিবারের সদস্য ও আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে সরাসরি কথা বলেন এবং রুমির মেডিকেলে লেখাপড়ার দায়িত্ব গ্রহণ করেন। 

সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জ বলেন, রুমি খুব মেধাবী। তার মতো মেধাবী শিক্ষার্থীদের লেখাপড়া অর্থের জন্য বন্ধ হতে পারে না। বর্তমান সরকার শিক্ষা খাতকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়েছে। বর্তমানে দেশের শিক্ষাব্যবস্থা অনেক উন্নত। পড়ালেখার ক্ষেত্রে দরিদ্রতা কোনো প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করবে এটা জননেত্রী শেখ হাসিনার বাংলায় কখনও হতে পারে না। আমি তার লেখাপড়ার দায়িত্ব নিয়েছি।

তিনি আরও বলেন, রুমির পরিবার ও আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে সরাসরি কথা বলেছি। তার লেখাপড়ার ব্যয় বহন করবো। শুধু রুমি না কুমারখালী-খোকসা আসনের সংসদ সদস্য হিসেবে আমি সব সময় সবার পাশে আছি ইনশাআল্লাহ। এই এলাকার সব মানুষের জন্য আমার দুয়ার সব সময় খোলা থাকবে। আমার সামর্থ্য আছে, তাই মানবিকভাবে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছি। আগামীতেও দেশ ও মানুষের কল্যাণে নিজেকে নিয়োজিত রাখবো।

রুমির বাবা রমজান আলী বলেন, আমার মেয়ে রংপুর মেডিকেল কলেজে চান্স পেয়েছে। মেয়েকে ভর্তি করানো এবং লেখাপড়ার খরচ চালানোর সামর্থ্য আমার নেই। এমপি জর্জ আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন এবং দেখা করতে বলেন। আমরা তার বাড়িতে গেলে তিনি রুমির লেখাপড়ার সকল দায়িত্ব নেবেন বলে জানান। যখন যা খরচ লাগবে তাকে জানালে তিনি আমাদের দেবেন। রুমির লেখাপড়ার দায়িত্ব নেওয়ায় এমপি জর্জকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

  যশোরের আলো
  যশোরের আলো
এই বিভাগের আরো খবর