রোববার   ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০   আশ্বিন ১২ ১৪২৭   ০৯ সফর ১৪৪২

  যশোরের আলো
৫২

বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ড

কুশীলবদের চিহ্নিত করতে কমিশন হচ্ছে

নিউজ ডেস্ক:

প্রকাশিত: ২৭ আগস্ট ২০২০  

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার ষড়যন্ত্রে জড়িতদের চিহ্নিত করতে শিগগিরই তদন্ত কমিশন গঠিত হচ্ছে। ১৫ আগস্টের ষড়যন্ত্র উদঘাটন, এর পৃষ্ঠপোষক, মদদদাতা ও পটভূমি রচনাকারীদের চিহ্নিত করাসহ জাতীয় ও আন্তর্জাতিক সম্পৃক্ততার স্বরূপ উন্মোচন করার লক্ষ্যে এ কমিশন কাজ করবে। বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে কমিশনের কাঠামো ও কার্যপরিধি বিষয়ে নানা পর্যালোচনা চলছে। কমিশন গঠনের প্রক্রিয়া ও কমিশনের কাজের ধরন বিষয়ে বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে আলোচনা করে মতামত নেওয়ার পরিকল্পনাও রয়েছে সরকারের।

জানা গেছে, সুপ্রিম কোর্টের সাবেক কোনো বিচারপতি এ কমিশন প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পেতে পারেন। থাকবেন আইনজীবীসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার প্রতিনিধি ও সংশ্লিষ্ট গবেষকরা। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে এলে এর পূর্ণাঙ্গ কার্যক্রম শুরু হবে। এরই মধ্যে আইন মন্ত্রণালয় বিস্তারিত কর্মপরিকল্পনা ঠিক করে প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এ বিষয়ে আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের নেপথ্যের ষড়যন্ত্র উদঘাটনে একটি তদন্ত কমিশন গঠন করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। করোনা পরিস্থিতি একটু স্বাভাবিক হলে কার্যক্রম শুরু হবে। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে এ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হবে। কীভাবে কমিশন গঠন করা হবে, এর কার্যপরিধি এবং ক্ষমতা কী হবে, টার্মস অব রেফারেন্স কী হবে তা নিয়ে বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে শিগগিরই আলোচনা করা হবে।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করা হয়। এ হত্যাকান্ডের পর ইনডেমনিটি অধ্যাদেশের মাধ্যমে বিচার বন্ধ করে দেওয়া হয়। ২১ বছর পর ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার কার্যক্রম শুরু করে। ২০১০ সালে আত্মস্বীকৃত কয়েকজন খুনির ফাঁসির রায় কার্যকর হয়। এখনো ৫ খুনি বিদেশে পলাতক। হত্যাকান্ডে সরাসরি অংশ নেওয়া খুনিদের বিচার হলেও এর পেছনের ষড়যন্ত্রকারী বা কুশীলবদের বিচারের দাবি দীর্ঘদিনের। এ ধরনের তদন্ত কমিশন গঠনের জন্য জাতীয় সংসদেও দাবি উঠেছিল। শেষ পর্যন্ত সরকার তদন্ত কমিশন গঠনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এ বিষয়ে নৌপরিবহণ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, প্রায় দুই যুগ পর বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার হলেও ষড়যন্ত্রের বিচার হয়নি। এর পেছনে জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে কারা ছিল, কেন এমন ঘটনা ঘটল তা পুঙ্খানুপুঙ্খ বের হয়নি। এটা বের করতে না পারলে অনেক কিছুই অন্ধকারে থেকে যাবে। তাই দ্রম্নত তদন্ত কমিশন গঠন করা দরকার।
 

  যশোরের আলো
  যশোরের আলো
এই বিভাগের আরো খবর