সোমবার   ০১ মার্চ ২০২১   ফাল্গুন ১৬ ১৪২৭   ১৭ রজব ১৪৪২

  যশোরের আলো
সর্বশেষ:
মাগুরায় হত্যা মামলার আসামি আটক মাগুরায় ৭ বছরের শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ তিন কিশোর হত্যায় যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রের ১২ জন অভিযুক্ত মাগুরায় মসলা জাতীয় ফসলের প্রযুক্তি হস্তান্তর বিষয়ে কর্মশালা ঝিনাইদহ পাবলিকিয়ান এসোসিয়েশনের মিলনমেলা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ঝিনাইদহে স্কুল বিজ্ঞান বিতর্ক প্রতিযোগিতা-২০২১ অনুষ্ঠিত ভেড়ামারায় তিন দিনব্যাপী উদ্যোক্তা মেলার উদ্বোধন কুষ্টিয়ায় দুই কেজি গাঁজাসহ আটক ১
৭৭৬

জোটের খোঁজ-খবর রাখে না বিএনপি

নিউজ ডেস্ক:

প্রকাশিত: ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২১  

নির্বাচন এলেই যেকোনো জোটের কদর বাড়ে বিএনপিতে। নির্বাচনের পরে এসব জোটের আর কোনো খোঁজ-খবর রাখে না দলটি। দলীয় সূত্র থেকে জানা গেছে, জাতীয় নির্বাচনে জয়ী হওয়ার কৌশল হিসেবে জোটের রাজনীতিতে যুক্ত বিএনপি।

জোট গঠনের সংস্কৃতির মাধ্যমে তাদের মূল নজর থাকে ভোটারদের আকর্ষণ করা। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই প্রধান দলগুলো ছাড়া জোটের অন্যান্য শরিকদের তেমন কোনো জনভিত্তি নেই। তারপরও তারা জোট করে জনগণকে এটা দেখানোর জন্য যে- তারা একটি বৃহত্তর রাজনৈতিক দলকে সঙ্গে নিয়ে জনগণের কাছে যাচ্ছে।

সূত্রটি আরো জানায়, জাতীয় নির্বাচন শেষে এসব জোটগুলোর আর কার্যকারিতা থাকে না। নির্বাচনের আগে, এর আগে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও ২০ দলীয় জোটসহ বিএনপি যতগুলো জোট গঠন করেছে তার সবগুলোই আজ মৃতপ্রায়। জোটের কার্যকারিতা নেই বললেই চলে। এমনকি তাদের কর্মতৎপরতা একদমই চোখে পড়ে না।

এ বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির সিনিয়র ও দায়িত্বশীল এক নেতা বলেন, বিএনপির দুটি জোট হলো ২০ দলীয় জোট ও ঐক্যফ্রন্ট। তিনি বলেন, গত নির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগকে হারানোর তীব্র মনবাঞ্চনা থেকে এই জোট গঠিত হয়েছিলো। কিন্তু নির্বাচনে ভরাডুবির পর এই জোট নিয়ে বিএনপির মধ্যে এক টানাপোড়েনের সৃষ্টি হয়েছে।

বিএনপির অধিকাংশ নেতা ও কর্মীরাই মনে করেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের দিকে যাওয়া এক আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত ছিলো। নির্বাচনের পর ঐক্যফ্রন্টের কিছু বৈঠক হলেও সেই বৈঠকে বিএনপির খুব একটা আগ্রহ দেখা যায়নি। এখন দীর্ঘদিন ধরে ওই জোটের কোনো বৈঠক হয়নি। সাম্প্রতিক সময় খালেদা জিয়া জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নিয়ে কিছু সমালোচনা করেছেন বলেও গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়েছিলো। তবে সত্য-মিথ্যা যাই হোক ‘জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট এখন মৃতপ্রায়’ বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি।

জানা গেছে, বিএনপির একটি আদর্শিক জোট হলো ২০ দলীয় জোট। নির্বাচনের পর পরই ওই জোট থেকে বেরিয়ে যায় আন্দালিব রহমান পার্থের নেতৃত্বাধীন বিজেপি। এই জোটটিও এখন অকার্যকর, দীর্ঘদিন ধরে জোটের কোনো বৈঠক হয় না। তাছাড়া জামায়াতের সঙ্গে বিএনপির সম্পর্ক নিয়ে আন্তর্জাতিক মহলে আপত্তি রয়েছে। আর এই আপত্তির কারণে বিএনপি এখন প্রকাশ্যে জোটের বৈঠক ডাকতে ভয় পায়। কিন্তু বিএনপির নেতা-কর্মীরা প্রকাশ্যেই বলেন, ২০ দলীয় জোট আছে, থাকবে। কিন্তু ২০ দলের মধ্যেই এখন এই জোটে থাকা নিয়ে আগ্রহ নেই অনেকের।

এ বিষয়ে বিএনপিপন্থী রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও বুদ্ধিজীবীরা বলেন, বিএনপি ২০ দলীয় জোটকে শুধু ব্যবহার করে নিজেদের উদ্দেশ্যে। আবার জোটের নেতারাও নিজেদের স্বার্থেই বিএনপির সঙ্গে জোট করে। তাই নির্বাচন এলে জোটের কার্যকারিতা বাড়ে। নির্বাচনের পরে এসব জোটের গুরুত্ব কমে।

  যশোরের আলো
  যশোরের আলো
এই বিভাগের আরো খবর