বুধবার   ২০ জানুয়ারি ২০২১   মাঘ ৬ ১৪২৭   ০৫ জমাদিউস সানি ১৪৪২

  যশোরের আলো
সর্বশেষ:
মাগুরায় প্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে যুবক আটক দৌলতদিয়ায় ৩০ কেজি জাটকা ইলিশ জব্দ রাজবাড়ীতে ‘বঙ্গবন্ধু নবম বাংলাদেশ গেমস’এর উদ্বোধন গাংনীতে অবৈধ ৫ ইটভাটাকে জরিমানা যশোরে তিন ক্লিনিক সিলগালা করেছে স্বাস্থ্যবিভাগ দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্তদের মধ্যে চেক ও শীতবস্ত্র বিতরণ
৪৭

ধর্ষনচেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে শিশু রত্নাকে হত্যা করে নানা!

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৫ জানুয়ারি ২০২১  

যশোরের কেশবপুর উপজেলায় আলোচিত শিশু রত্না খাতুন (৯) হত্যাকাণ্ডের রহস্য উন্মোচন করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। 

এ ঘটনায় সোমবার (৪ জানুয়ারি) সকাল ১১টার দিকে যশোরের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন একমাত্র আসামি শিশু রত্নার নানা (বাবার আপন মামা) ইসমাইল হোসেন (৩২)।

পিবিআই জানায়, ধর্ষণচেষ্টার সময় চিৎকার করায় শিশুটির নাক-মুখ চেপে ধরে হত্যা করেন নানা ইসমাইল হোসেন। এ সময় হত্যার ঘটনা আড়াল করতে ওড়না পেঁচিয়ে ঘরের আড়ার সঙ্গে শিশুটিকে ঝুলিয়ে দেন তিনি। পরে এ ঘটনায় অপমৃত্যু মামলা হলে তিনি পালিয়ে যান। গত রোববার রাতে তাকে পটুয়াখালীর কলাপাড়া থানা এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয় বলেও জানায় পিবিআই।

জানা গেছে, নিহত রত্নার বাবা জাহিদুল কেশবপুর উপজেলার আলতাপোল সরদারপাড়া গ্রামে নানার বাড়িতে বসবাস করতেন। অভিযুক্ত ইসমাইল হোসেন তার আপন মামা। গত ২১ নভেম্বর বিকেলে জাহিদুলের বাড়িতে থাকা অসুস্থ বাবাকে দেখতে ইসমাইল সেখানে যায়। সেই সময় ভুক্তভোগী রত্না ঘরে একা টিভি দেখছিল। তখন ইসমাইল ঘরে ঢুকে শিশুটিকে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। তখন সে চিৎকার দিতে গেলে ইসমাইল নাক-মুখ চেপে ধরলে রত্না নিস্তেজ হয়ে পড়ে। পরে শিশুটির গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ঘরের আড়ার সঙ্গে ঝুলিয়ে কৌশলে পালিয়ে যান।

এ বিষয়ে পিবিআই যশোরের পুলিশ সুপার রেশমা শারমিন জানান, গত ২১ নভেম্বর সন্ধ্যা ৭টার দিকে ঘরের বাঁশের আড়ার সঙ্গে ওড়নায় ঝুলন্ত অবস্থায় রত্না খাতুনের লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় ওইদিন কেশবপুর থানায় অপমৃত্যু মামলা হয়। পরে ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনের ভিত্তিতে শিশুটির বাবা জাহিদুল ইসলাম অজ্ঞাতনামা আসামি করে কেশবপুর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

পরে মামলাটি পিবিআই স্ব-উদ্যোগে তদন্ত শুরু করে। রোববার রাতে পটুয়াখালী জেলা পুলিশের সহায়তায় কলাপাড়া থানা এলাকা থেকে ইসমাইল হোসেনকে গ্রেফতার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি হত্যার দায় স্বীকার করেন। সোমবার তাকে আদালতে নেয়া হলে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন।
 

  যশোরের আলো
  যশোরের আলো
এই বিভাগের আরো খবর