বৃহস্পতিবার   ০৩ ডিসেম্বর ২০২০   অগ্রাহায়ণ ১৮ ১৪২৭   ১৬ রবিউস সানি ১৪৪২

  যশোরের আলো
সর্বশেষ:
রাজবাড়ীতে নতুন করে ৭ জনের করোনা শনাক্ত ‘পার্বত্য চট্টগ্রামসহ দেশে শান্তি বজায় রাখতে সরকার বদ্ধপরিকর’ বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে শৈলকুপায় প্রীতি ফুটবল ম্যাচ হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত, ১০ ডিসেম্বর ফরিদপুর পৌরসভা নির্বাচন খোকসা পৌরসভা নির্বাচন: মেয়র পদে দুই জনসহ ৪৬ জনের মনোনয়নপত্র জমা করোনা পরিস্থিতিতে যশোরের বিজয় দিবস হবে সংক্ষিপ্ত পরিসরে পাঁচ মাসে ১১ বিলিয়ন ডলার ছাড়ালো রেমিট্যান্স ফেসবুকের কল্যাণে বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী হানিফকে খুঁজে পেল তার পরিবার ‘তরুণ প্রজন্মকে বিজ্ঞান চর্চায় আগ্রহী করে তুলতে হবে’
৩৪

নাগরনো-কারাবাখ নিয়ে সংঘর্ষে ৫ হাজার মানুষ নিহত হয়েছে: পুতিন

প্রকাশিত: ২৪ অক্টোবর ২০২০  

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন, বিতর্কিত নাগরনো-কারাবাখ অঞ্চলের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে আজারবাইজান ও আর্মেনিয়ার মধ্যে গত প্রায় এক মাসের সংঘর্ষে প্রায় পাঁচ হাজার মানুষ নিহত হয়েছে। 

শুক্রবার মস্কোয় এক বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি। খবর বিবিসির।

এ পর্যন্ত নিহতের সংখ্যা নিয়ে আজারবাইজান ও আর্মেনিয়ার পক্ষ থেকে যেসব তথ্য জানানো হয়েছে তার চেয়ে পুতিনের ঘোষিত এ সংখ্যা অনেক বেশি।

তিনি বলেন, “উভয় দেশের বহু মানুষ এ সংঘর্ষে নিহত হয়েছে, প্রত্যেক দেশ থেকে দুই হাজারের বেশি করে মানুষ প্রাণ হারিয়েছে এবং এ সংখ্যা পাঁচ হাজারের কাছাকাছি পৌঁছেছে।” পুতিনের এ ঘোষণার আগে নিহতের সংখ্যা কখনও এক হাজার অতিক্রম করেনি।

এর আগে নাগরনো-কারাবাখ নিয়ন্ত্রণকারী কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, সংঘর্ষে তাদের ৮৭৪ জন সেনা ও ৩৭ জন বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছে। অন্যদিকে আজারবাইজান জানিয়েছে তাদের কমপক্ষে ৬১ জন বেসামরিক নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে। তবে বাকু তাদের নিহত সেনার সংখ্যা ঘোষণা করেনি।

পুতিন বলেন, তিনি প্রতিদিন কয়েকবার দু’দেশের সঙ্গে সংঘাত বন্ধের উপায় নিয়ে কথা বলছেন এবং এ সংঘর্ষে কোনও একটি পক্ষকে তার দেশ সমর্থন দেবে না।

আর্মেনিয়ার সঙ্গে রাশিয়ার সামরিক চুক্তি থাকার পাশাপাশি দেশটিতে রাশিয়ার একটি সামরিক ঘাঁটি রয়েছে। অন্যদিকে আজারবাইজানের সঙ্গেও রাশিয়া ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রক্ষা করে।  গত ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে আজারবাইজান ও আর্মেনিয়ার মধ্যে নাগরনো-কারাবাখ অঞ্চলের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে ব্যাপক সংঘর্ষ শুরু হয়। দুই দেশ এ পর্যন্ত দু’বার যুদ্ধবিরতিতে সম্মত হলেও স্বল্প সময়ের ব্যবধানে তা ভেঙে গেছে।

আন্তর্জাতিকভাবে নাগরনো-কারাবাখ অঞ্চলটি আজারবাইজানের ভূখণ্ড হিসেবে স্বীকৃত। কিন্তু ১৯৯০ এর দশকে সেখানে নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করে আর্মেনিয়া। দখলীকৃত এলাকা থেকে বহু আজারি নাগরিককে বিতাড়িত করা হয় বলে অভিযোগ রয়েছে।

  যশোরের আলো
  যশোরের আলো
এই বিভাগের আরো খবর