বৃহস্পতিবার   ০১ ডিসেম্বর ২০২২   অগ্রাহায়ণ ১৬ ১৪২৯   ০৭ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

  যশোরের আলো
সর্বশেষ:
যশোরে বিনামূল্যে মিলছে হার্ট অ্যাটাকে জীবন রক্ষাকারী ৬ ইনজেকশন ঝিনাইদহে আয়কর দাখিলে মানুষের আগ্রহ বেড়েছে শেষ ষোলোয় টিকে থাকতে রাতে মাঠে নামছে আর্জেন্টিনা ঝিনাইদহে তিন হাজার কৃষকের মাঝে বিনামূল্যে সার ও বীজ বিতরণ বেনাপোলে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে সরকারি বই বিক্রির অভিযোগ
৪১

নাগরিক সেবায় ৫৪ কমিউনিটি ক্লিনিক বানাবে ডিএনসিসি

প্রকাশিত: ৪ নভেম্বর ২০২২  

জনগণের চিকিৎসা সেবা বাড়াতে ডিএনসিসি এলাকায় ৫৪টি কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম। তিনি বলেছেন, ৫৪টি ক্লিনিকে জনসাধারণ প্রাথমিক চিকিৎসা নেবে। উন্নত চিকিৎসা প্রয়োজন হলে কমিউনিটি ক্লিনিক থেকে ডিএনসসি জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য প্রেরণ করা হবে। ৫৪টি ক্লিনিক নির্মাণে অর্থায়ন করতে রাজি হয়েছে এশিয়ান ইনফ্রাস্ট্রাকচার ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংক (এআইআইবি)। প্রকল্প প্রণয়ন করে দ্রুত তা বাস্তবায়ন করা হবে।

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে চলমান ডেঙ্গু পরিস্থিতিতে ডেঙ্গু রোগীর চিকিৎসার জন্য মহাখালীতে ডিএনসিসির কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতাল পরিবর্দশনকালে এ কথা বলেন মেয়র। পরিদর্শনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় (এলজিইআরডি) বিষয়কমন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। স্থানীয় সরকার মন্ত্রী ও ডিএনসিসি মেয়র শুরুতেই হাসপাতালটি ঘুরে দেখেন। ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীদের পাশে গিয়ে তাদের সঙ্গে কথা বলেন ও খোঁজখবর নেন।

পরিদর্শনে আরো উপস্থিত ছিলেন ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সেলিম রেজা, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. জোবায়দুর রহমান, ডিএনসিসি কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতালের পরিচালক ব্রি. জে. একেএম শফিকুর রহমান প্রমুখ।

নগরবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়ে মেয়র বলেন, ডেঙ্গুর প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় ডিএনসিসি কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতালে ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এটি সবার জন্য উন্মুক্ত। এই হাসপাতালে পর্যাপ্ত বেডের ব্যবস্থা আছে। ডেঙ্গু আক্রান্ত হলে আতঙ্কিত না হয়ে ডিএনসিসি কোভিড হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসুন।

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিষয়কমন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম বলেন, ডিএনসিসি ডেডিকেটেড কোভিড হাসপাতালে ১০০০ শয্যার মধ্যে ছয়জন কোডিভ রোগী আলাদাভাবে সেবা নিচ্ছে। এখানে ১০৫ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি রয়েছে এবং আরো প্রায় ৪০০ শয্যা চিকিৎসার জন্য প্রস্তুত রয়েছে। ডেঙ্গুর চিকিৎসায় কোনো ঘাটতি নেই। ডেঙ্গু পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য সরকার আন্তরিকভাবে কাজ করছে।
 

  যশোরের আলো
  যশোরের আলো