শনিবার   ০৬ জুন ২০২০   জ্যৈষ্ঠ ২৩ ১৪২৭   ১৪ শাওয়াল ১৪৪১

  যশোরের আলো
৮৬

নড়াইলে ১০০ শিশুর পাশে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী মির্জা গালিব 

জেলা প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ২৩ মে ২০২০  

করোনাভাইরাস ও ঘূর্ণিঝড় আম্পানের দুর্যোগকালে নড়াইলে ১০০ শিশুর মুখে হাসি ফুটালেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী মির্জা গালিব সতেজ। 

সুবিধাবঞ্চিত, ছিন্নমূল ও এতিম শিশুদের মাঝে ঈদের নতুন পোশাক দিয়েছেন তিনি। এছাড়া হাসপাতালের রোগী, এতিম, পথচারী এবং সুবিধাবঞ্চিত মানুষের মাঝে ইফতার ও ইফতারসামগ্রী পৌঁছে দিয়েছেন সতেজ। নিজের জন্য ঈদের নতুন পোশাক না কিনে, সেই টাকাসহ পরিবারের সহযোগিতায় কিনেছেন সুবিধাবঞ্চিত ও এতিম শিশুদের ঈদের নতুন পোশাক। গত কয়েকদিন ধরে বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দিয়েছেন সেই পোশাক।

সতেজ ঢাকার ডেফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে কম্পিউটার স্যায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং অষ্টম সেমিস্টারের শিক্ষার্থী এবং নড়াইল সরকারি মহিলা কলেজপাড়ার বিএম নজরুল ইসলামের ছেলে।

সতেজ জানান, মানবসেবা তার একমাত্র নেশা। তাই করোনাভাইরাসের ছুটিতে নড়াইলে এসে মানবসেবা করছেন। করোনার শুরু থেকেই অসহায় মানুষকে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দেয়া, মাস্ক বিতরণ, জীবাণুনাশক স্প্রে, বিনামূল্যের সবজিবাজার, গরিব কৃষকের ধানকর্তন, সুবিধাবঞ্চিত মা ও শিশুদের মেডিকেল ক্যাম্প চালুসহ বিভিন্ন সেবামূলক কাজ করেছেন। এরই ধারাবাহিতায় রমজানের শুরু থেকে ইফতার ও ইফতারসামগ্রী পৌঁছে দিয়েছেন হাসপাতালের রোগী, এতিম, পথচারী ও সুবিধাবঞ্চিত মানুষের মাঝে। পবিত্র ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে সুবিধাবঞ্চিত, ছিন্নমূল ও এতিম শিশুদের মাঝে দিয়েছেন ঈদের নতুন পোশাক। দিনে ও রাতের আঁধারে বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দিয়েছেন নতুন পোশাক।

এই দুর্যোগে ঈদের পোশাক পেয়ে মহাখুশি নড়াইলের গোহাটখোলার ছোট্ট শিশু রাফি, আব্দুর রহিম, আল মামুন, আলিমুন, মহিলা কলেজপাড়ার নিরব, পলি, বর্ষা, ফারজানাসহ অন্যরা।

এ ব্যাপারে সতেজের বন্ধু আহমেদ শাকিল, এস এম শাহ পরাণ, সামিরা হক শাম্মা, কে এম রাহাত নেওয়াজ, সোহাগ ফরাজি, মিনহাজ, পরাগ ও জাকারিয়া বলেন, করোনা মোকাবেলায় শুরু থেকেই মাঠে আছে সতেজ। তার নানা ধরনের কর্মকাণ্ড আমাদের অনুপ্রাণিত করে। পড়ালেখার পাশাপাশি মানবসেবা করে যাচ্ছে সতেজ। আমরা তাকে বিভিন্ন সময়ে সহযোগিতা করে থাকি।

নারীনেত্রী ও সমাজসেবক পলি রহমান বলেন, সতেজের মানবসেবাকে স্যালুট জানাই। ছাত্রজীবনে সে যে কাজ করছে, তা অতুলনীয়। বিশেষ করে করোনার দুর্যোগময় সময়ে প্রায় ৫০০ অসহায় মানুষ বাড়ি বাড়ি খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দেয়াসহ মাস্ক বিতরণ, জীবাণুনাশক স্প্রে, বিনামূল্যের সবজিবাজার, গরিব কৃষকের ধানকর্তন, সুবিধাবঞ্চিত মা ও শিশুদের মেডিকেল ক্যাম্প চালু ছাড়াও বিভিন্ন সেবামূলক কাজ করেছেন সতেজ।

সতেজের এ ধরনের ইতিবাচক কর্মকান্ডের প্রশংসা করে নড়াইলের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন বলেন, তরুণ প্রজন্মের সেবক মির্জা গালিব সতেজের কর্মকান্ড খুব ভালো লেগেছে। এগুলো মানবিক উদ্যোগ। আমাদের এমপি মাশরাফি বিন মর্তুজার জেলা ‘মানবিক নড়াইল জেলা’ হিসেবে ভূমিকা রাখছে। এছাড়া বিভিন্ন ক্ষেত্রে নড়াইল দেশের পথপ্রদর্শকের ভূমিকা পালন করছে।

  যশোরের আলো
  যশোরের আলো
এই বিভাগের আরো খবর