সোমবার   ০৮ আগস্ট ২০২২   শ্রাবণ ২৩ ১৪২৯   ১০ মুহররম ১৪৪৪

  যশোরের আলো
সর্বশেষ:
বর্তমান বিশ্ব পরিস্থিতিতে যে কারণে তেলের দাম বৃদ্ধি যৌক্তিক খুলনা-যশোর অঞ্চলে ১৭১ রেলগেটের ৯৮টি অরক্ষিত যশোরে এক মাসে হারানো ৪৯টি মোবাইল উদ্ধার বেনাপোলে পণ্য আমদানিতে অভাবনীয় গতি বাস-মিনিবাসের ভাড়া পুনঃনির্ধারণ করে প্রজ্ঞাপন জারি
৭৫

বেনাপোল বন্দরে রপ্তানি বেড়েছে

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২৭ জুলাই ২০২২  

বেনাপোল বন্দর দিয়ে গত ২০২১-২২ অর্থবছরে বাংলাদেশি পণ্য ভারতে রপ্তানি বেড়েছে ১ লাখ ৫৪ হাজার ৩৪৪ টন। দেশের অর্থনীতিকে সচল রাখতে করোনাকালীনও বন্দর ও কাস্টমস ২৪ ঘণ্টা বাণিজ্যিক কার্যক্রম পরিচালনা করায় এ বিপুল পরিমাণে পণ্য রপ্তানি সম্ভব হয়েছে বন্দর সংশ্লিষ্টদের।

বেনাপোল কাস্টমস কমিশনার আজিজুর রহমান জানান, বেনাপোল বন্দর দিয়ে ২০২১-২২ অর্থবছরে বাংলাদেশি পণ্য ভারতে রপ্তানি হয়েছে ৪ লাখ ৫১ হাজার ৩৯৫ টন। আর ২০২০-২১ অর্থবছরে এ রপ্তানির পরিমাণ ছিল ২ লাখ ৯৭ হাজার ৪৯ টন। সড়কপথের পাশাপাশি ট্রেনে পণ্য আমদানি হচ্ছে ভারত থেকে। পরে ট্রেন খালি ফেরত যায়। রেল পথে রপ্তানি চালু করা গেলে সময় ও খরচ কম হবে। এতে পণ্য রপ্তানি বাড়বে। ইতোমধ্যে এ বিষয়ে পরমর্শ দিয়েছে ভারত। বিষয়টি কর্তৃপক্ষ বিবেচনা করছেন।
 
বন্দর সূত্রে জানা যায়, ১০ বছর আগেও বেনাপোল বন্দর দিয়ে কেবল আমদানি বাণিজ্যে গুরুত্ব ছিল। তবে বাংলাদেশি পণ্যের গুণগত মান ভালো হওয়ায় চাহিদা বাড়তে থাকে ভারতে। আমদানি হতো এমন অনেক পণ্যই এখন রপ্তানি তালিকায় যুক্ত হয়েছে। রপ্তানি পণ্যের মধ্যে রয়েছে পাটজাত পণ্য, তৈরি পোশাক, কেমিক্যাল, অ্যাসিড, কাগজ, কাঁচা লোহা, বসুন্ধারা টিসু, মেলামাইন, রাইস ব্র্যান্ড, মেহেগনি ফলসহ শতাধিক প্রকারের পণ্য।

বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি সামছুর রহমান জানান, রপ্তানি বৃদ্ধিতে দেশি পণ্যের যেমন কদর বেড়েছে তেমনি কর্মসংস্থান সৃষ্টি হওয়ায় বেকারত্ব কমছে।

অন্যদিকে রেলে ভারত থেকে পণ্য আমদানি হলেও রপ্তানির সুযোগ নেই। পণ্য খালাস করে খালি রেল ফিরে যায় ভারতে। রেলে এসব রপ্তানি করা গেলে দ্রুত সময়, কম খরচ ও নিরাপদে পণ্য পরিবহনে লাভবান হবেন ব্যবসায়ীরা।

বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ স্টাফ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মুজিবর রহমান জানান, রপ্তানি পণ্যবাহী ট্রাকে অবৈধ পণ্য যাতে প্রবেশ করতে না পারে সে জন্য ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) দীর্ঘ সময় ধরে ট্রাক তল্লাশি করছে। এতে দিনের মধ্যে সব ট্রাক পার করা সম্ভব হচ্ছে না। হয়রানিমূলক তল্লাশি কমলে রপ্তানি আরও বৃদ্ধি পাবে।

বেনাপোল আমদানি রপ্তানি সমিতির সহসভাপতি আমিনুল হক জানান, পদ্মা সেতু চালুর ফলে যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ হওয়ায় এখন রপ্তানি বাণিজ্য আরও বৃদ্ধি পাবে। তবে বাণিজ্য গতিশীল করতে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে।

বেনাপোল বন্দরের উপপরিচালক (প্রশাসন) আবদুল জলিল জানান, দেশের অর্থনীতিকে সচল রাখতে করোনাকালীন সময়েও কাস্টমসের পাশাপাশি বন্দরের কর্মকর্তা, কর্মচারীরা ২৪ ঘণ্টা বাণিজ্য সেবা চালু রেখেছিলেন। এর ফলে এ রপ্তানি বৃদ্ধি পেয়েছে। আরও দ্রুত যাতে পণ্যবাহী ট্রাক ওপারে প্রবেশ করতে পারে ভারতীয় কর্তৃপক্ষকে ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ জানানো হয়েছে।

  যশোরের আলো
  যশোরের আলো
এই বিভাগের আরো খবর