বুধবার   ১৯ জুন ২০২৪   আষাঢ় ৬ ১৪৩১   ১২ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

  যশোরের আলো
সর্বশেষ:
সেন্টমার্টিনে বিজিবি ও পুলিশকে সতর্ক থাকার নির্দেশ বাংলাদেশকে সুপার এইটে তুললো বোলাররা দলীয় নেতাদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় আসুন ত্যাগের মহিমায় দেশ ও মানুষের কল্যাণে কাজ করি: প্রধানমন্ত্রী চামড়া কেনায় ট্যানারি মালিকরা ২৭০ কোটি টাকা ঋণ পাচ্ছে
২৫১

ভিকারুননিসার ছাত্রীকে শিক্ষকের যৌন হয়রানি

প্রকাশিত: ৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩  

রাজধানীর ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের নবম শ্রেণির এক ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগ উঠেছে প্রতিষ্ঠানটির এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত শিক্ষকের নাম আবু সুফিয়ান। তিনি ভিকারুননিসার বসুন্ধরা শাখার ইংরেজি শিক্ষক। ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীও ওই শাখার ছাত্রী।

গত ২৩ আগস্ট নবম শ্রেণির ওই শিক্ষার্থীর বাবা তার মেয়েকে যৌন হয়রানি করা হয়েছে উল্লেখ করে ঢাকার বিভাগীয় কমিশনার মো. সাবিরুল ইসলামের কাছে একটি লিখিত অভিযোগ করেন। গত ৩১ আগস্ট সহকারী কমিশনার আল আমিন হালদারকে অভিযোগটি তদন্তের দায়িত্ব দেন বিভাগীয় কমিশনার।

লিখিত অভিযোগে শিক্ষার্থীর বাবা উল্লেখ করেন, ‘আমার মেয়ে ভিকারুননিসা স্কুলের বসুন্ধরা শাখার নবম শ্রেণির দিবা শাখার ছাত্রী। ওই শাখার ইংরেজি বিষয়ের শিক্ষক আবু সুফিয়ানের কাছে সে প্রাইভেট পড়তে যেত। ওই শিক্ষক প্রাইভেট পড়ানোর ফাঁকে বিভিন্ন সময় আমার মেয়েকে অশালীন খুদেবার্তা (এসএমএস) পাঠিয়েছে, যেগুলো খুবই আপত্তিকর ও সম্মানহানিকর। একজন শিক্ষকের কাছ থেকে এমন আচরণ আশা করা যায় না। আমি এ ঘটনার প্রতিকার চাই।’

লিখিত অভিযোগ পাওয়ার বিষয়টি স্বীকার করে ঢাকার বিভাগীয় কমিশনার মো. সাবিরুল ইসলাম বলেন, গতকাল (২ সেপ্টেম্বর) তদন্ত প্রতিবেদন দেওয়ার কথা ছিল, এখন পর্যন্ত জমা হয়নি। আশা করছি আগামীকাল সোমবার প্রতিবেদন পাব।

তিনি বলেন, ‘এসব ইস্যুতে আমাদের অবস্থান জিরো টলারেন্স। কেউ দোষী প্রমাণিত হলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ 

এ বিষয়ে বক্তব্য জানতে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ কেকা রায় চৌধুরীকে একাধিকবার ফোন করলেও তিনি ফোন ধরেননি।

ভিকারুননিসার বসুন্ধরা শাখার এক শিক্ষক নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, শিক্ষক আবু সুফিয়ান তার বাসায় ব্যাচভিত্তিক প্রাইভেট পড়ান। তার বিরুদ্ধে এর আগেও একই ধরনের অভিযোগ উঠেছিল। কিন্তু স্কুল কর্তৃপক্ষ তা এড়িয়ে গেছে।

প্রসঙ্গত, এর আগে ২০১১ সালে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের বাংলা শিক্ষক পরিমল জয়ধর ওই প্রতিষ্ঠানের এক ছাত্রীকে ধর্ষণ করেন। ওই ঘটনায় তার বিরুদ্ধে মামলা হয়। ২০১৫ সালে আদালত তাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন।

  যশোরের আলো
  যশোরের আলো
এই বিভাগের আরো খবর