সোমবার   ০৬ এপ্রিল ২০২০   চৈত্র ২৩ ১৪২৬   ১২ শা'বান ১৪৪১

  যশোরের আলো
৭০

মাস্কের ব্যবহারে কিছু পরামর্শ

লাইফস্টাইল ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৭ মার্চ ২০২০  

করোনাভাইরাস থেকে বাঁচতে প্রাথমিকভাবে মাস্ক পরার কথা বলা হয়েছে। অনেকে নিজের সুরক্ষার জন্য মাস্ক পরছেন। মাস্ক কেন পরবেন এবং কোন ধরনের মাস্ক ব্যবহার করবেন জেনে নিন। 

ডিসপোজিবল মাস্ক : ডিসপোজিবল মাস্কে সার্জিক্যাল ফেস মাস্কও বলা হয়। হাসপাতালে ভর্তি রোগীদের আশপাশে থাকা চিকিৎসক এবং হাসপাতালের কর্মীরা সাধারণত এই ধরনের মাস্ক ব্যবহার করেন, যা চিকিৎসক ও রোগী উভয়কেই সংক্রমণের হাত থেকে রক্ষা করে। তবে এটি বাতাসের ছোট ছোট কণা আটকাতে পারে না। এ ধরনের মাস্ক মাত্র তিন থেকে আট ঘণ্টার বেশি পরা উচিত নয়। আর পরলে তা করোনাভাইরাস প্রতিরোধ করতে পারবে না।

এন ৯৫ রেসিপিরেটর মাস্ক : এন ৯৫ রেসিপিরেটর মাস্ক অস্ত্রোপচারের মাস্কের চেয়েও বেশি কার্যকর। এর কারণ এটি ‌‘ইনসাইড টু আউটসাইড' অর্থাৎ বাইরে থেকে ভেতরে ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণকে প্রতিরোধ করে। এই মাস্কটি করোনা, এইচ-১ ডব্লিউ-১ এবং সার্সের মতো ভাইরাসের সংক্রমণে সহায়তা করে না। করোনাভাইরাস থেকে সুরক্ষা পেতে এন ৯৫ রেসিপিরেটরের ব্যবহার বেশি কার্যকর। এর কারণ, এই মাস্কগুলো ভালো ফিট হয় এবং প্রায় শূন্য দশমিক ৩ মাইক্রোনের ব্যাসযুক্ত ছোট কণাগুলোকে ফিল্টার করে দেয়। এটি বাতাসে উপস্থিত ছোট কণার ৯৫ শতাংশকে অবরুদ্ধ করে। করোনাভাইরাসটি প্রায় শূন্য দশমিক ১২ মাইক্রোন ব্যাস পরিমাপ করে। তাই, এই মাস্ক সংক্রমণ রোধে অকার্যকর হতে পারে বলে পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

এফএপপি মাস্ক : এই মাস্কটি এতটা মানসম্পন্ন নয়, তবে পরিস্রাবণ ৮০ শতাংশ এবং ছিদ্র ২০ শতাংশ হয়। এটি বাড়িতে ব্যবহারের জন্য ভালো। এফএপপি ২ মাস্ক এফএপপি-১-এর তুলনায় বেশি ভালো। এতে পরিস্রাবণ ৯৪ শতাংশ এবং ছিদ্র ৮ শতাংশ পর্যন্ত হয়। বর্তমানে এই মাস্কগুলো করোনাভাইরাস এড়াতে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হচ্ছে। এফএপপি-৩ মাস্ক বলা হয় সর্বোচ্চ মানসম্পন্ন মাস্ক, যার মধ্যে পরিস্রাবণ সাধারণত ৯৯ শতাংশ এবং ছিদ্র প্রায় ২ শতাংশ পর্যন্ত হয়। করোনা, সার্স ও অন্যান্য মারাত্মক ভাইরাসগুলো থেকে বাঁচতে ব্যবহারের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। এই মাস্কটি কাশি ও হাঁচির মাধ্যমে সংক্রমণ ছড়াতে বাধা দেয়।


কারা পরবেন মাস্ক

আপনি যদি একজন মেডিকেল কর্মী হন।

আপনি যদি সিওভিআইডি-১৯-এ আক্রান্ত হন।

আপনি যদি সংক্রামিত রোগীদের সংস্পর্শে থাকেন।

আপনি যদি ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের অঞ্চলে বসবাস করেন।

কোলাহলপূর্ণ এলাকার মধ্য দিয়ে চলাচল করেন।

যদি আপনি কোনো সংক্রামিত ব্যক্তির যত্ন নেন।

আপনার শরীরে যদি ফ্লুর মতো কোনো লক্ষণ দেখা দেয়।

কখন পরবেন

আপনি যদি সুস্থ থাকেন, তাহলে সিওভিআইডি-১৯ হয়েছে এমন কোনো সন্দেহভাজন রোগীর যত্ন নেওয়ার সময় আপনার মাস্ক পরা অবশ্যই কর্তব্য।

আপনার যদি কাশি ও সর্দি লেগে থাকে তবে মাস্ক পরুন।

মাস্ক পরার পরও আপনি খেয়াল রাখবেন যাতে আপনার হাত পরিষ্কার থাকে। কারণ, মাস্ক খোলার সময় সংক্রামিত হাত নাকে, মুখে স্পর্শ হলে আপনার শরীরে ভাইরাস সংক্রমণ হতে পারে। তাই, সময়-সময় হাত ধুয়ে নিন।

মাস্ক পরার পর সেটার যত্নও সঠিকভাবে করুন।

মাস্ক পরার সময় সাবধানতা

মাস্ক পরার আগে অ্যালকোহলভিত্তিক হ্যান্ড স্যানিটাইজার বা সাবান ও পানি দিয়ে ভালো করে হাত ধুয়ে নিন।

মাস্ক দিয়ে আপনার মুখ ও নাকটি ঢেকে রাখুন এবং খেয়াল রাখবেন যাতে কোনো ফাঁক না থাকে।

মাস্ক পরার পর হাত দিয়ে স্পর্শ করবেন না, যদি স্পর্শ করেন তাহলে সঙ্গে সঙ্গে হাত পরিষ্কার করুন।

একবার ব্যবহার করা মাস্ক পুনরায় ব্যবহার করবেন না।

মাস্ক খোলার উপায়

মাস্ক কখনোই বাইরে থেকে হাত দিয়ে স্পর্শ করবেন না।

পেছন থেকে মাস্কটি খুলুন এবং অবিলম্বে এটি ঢাকনাসহ ডাস্টবিনে ফেলে দিন।

অ্যালকোহলভিত্তিক স্যানিটাইজার বা সাবান-জল দিয়ে হাত পরিষ্কার করুন।

  যশোরের আলো
  যশোরের আলো