ব্রেকিং:
দেশে একদিনে করোনায় সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড এভাবে রিসোর্টে যাওয়া সমীচীন হয়নি: লাইভে মামুনুল হকের স্বীকারোক্তি

রোববার   ১১ এপ্রিল ২০২১   চৈত্র ২৭ ১৪২৭   ২৮ শা'বান ১৪৪২

  যশোরের আলো
সর্বশেষ:
যশোরে আরও ৫৯ জনের করোনা শনাক্ত যশোরে ছেলের হাতে পিতা খুন মাগুরায় মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ ঝিনাইদহে তেঁতুল গাছ থেকে পড়ে বৃদ্ধের মৃত্যু কুমারখালীতে সড়ক দুর্ঘটনায় মাদরাসাছাত্র নিহত ইবির ৫৮৬ ফেসবুক ব্যবহারকারীর তথ্য ফাঁস গরম বাতাসে পুড়ে গেছে ঝিনাইদহের ১১৭ হেক্টর জমির ধান শখের মাছের খামারে কোটি টাকার হাতছানি বালিয়াকান্দিতে ভ্রাম্যমান মাছ বিক্রি’র উদ্বোধন রাজবাড়ীর তিন উপজেলায় ছাত্রলীগের নতুন কমিটি ঘোষণা যশোরের চাঁচড়া হ্যাচারি পল্লীতে পোনা উৎপাদনে রুপালি বিপ্লব স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ সরকার গঠিত হয় একাত্তরের ১০ এপ্রিল শৈলকুপায় করোনায় একজনের মৃত্যু দৌলতদিয়ায় ৩০০ গ্রাম হোরোইনসহ, আটক ১
৬৯

যশোরে স্বর্ণ পাচার আইনে দুজনের যাবজ্জীবন

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২২ মার্চ ২০২১  

যশোরে স্বর্ণ পাচার আইনে দুই চোরাকারবারিকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। একই সাথে প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। 

রোববার (২১ মার্চ) দুপুরে যশোরের সিনিয়র দায়রা জজ ও সিনিয়র স্পেশাল ট্রাইবুনালের বিচারক মো. ইখতিয়ারুল ইসলাম মল্লিক এই রায় ঘোষণা করেন। রায় ঘোষণার সময় তারা আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

সাজাপ্রাপ্তরা হলেন- খুলনা পাইকগাছার হাশিমপুর সাহাপাড়ার খান বাড়ির মৃত রেজওয়ান খানের ছেলে তহিদুর রহমান খান ও বাগেরহাট সদরের বোটপুর গ্রামের মৃত দুলাল শেখের ছেলে আব্দুল মালেকুর ওরফে মালেক শেখ। রাষ্ট্রপক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেছেন পিপিএম ইদ্রিস আলী।

আদালত সূত্র জানা গেছে, ২০১৫ সালের ২ সেপ্টেম্বর বাঘারপাড়া থানা পুলিশ ওই দুইজনকে একটি প্রাইভেটকারসহ আটক করে। এরপর তাদের বিরুদ্ধে দ্রুত বিচার আইনে মামলা ও প্রাইভেটকারটি জব্দ রাখা হয়। পরে ৪ সেপ্টেম্বর রাত ১১টার দিকে বাঘারপাড়া থানার পুলিশ জানতে পারে থানায় জব্দ থাকা প্রাইভেট কারের মধ্যে সোনার বার লুকানো আছে। থানার ওসি ছয়রুদ্দিন বিষয়টি পুলিশ সুপার ও জেলা প্রশাসকে অবহিত করেন এবং স্থানীয়দের উপস্থিতিতে রাত ১২ টা ১৫ মিনিটে বাঘারপাড়া থানা ভবনের সামনে প্রাইভেটকার এনে তল্লাশি করা হয়। রাত ২ টা ৩০ মিনিটে গাড়ির গিয়ার বক্সের মধ্যে থেকে কসটেপ জড়ানো ১১ টি প্যাকেট পাওয়া যায়। ওই প্যাকেটের মধ্যে লুকানো ছিলো ১শ’১০ টি সোনার বার। যার ওজন ১২ কেজি ৮শ’৩০ গ্রাম। যার দাম ৪ কোটি ৪ লাখ আশি হাজার টাকা।

এ ঘটনায় বাঘারপাড়া থানার এসআই ছামেদুল হক বাদী হয়ে চোরাচালান দমন আইনে মামলা করেন। মামলার তদন্ত শেষে ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকায় ওই দুইজনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট জমা দেন ডিবির এসআই আবুল খায়ের মোল্যা। দীর্ঘ সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় বিচারক তাদের যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানার আদেশ দিয়েছেন। 

  যশোরের আলো
  যশোরের আলো
এই বিভাগের আরো খবর