রোববার   ২৯ নভেম্বর ২০২০   অগ্রাহায়ণ ১৪ ১৪২৭   ১৩ রবিউস সানি ১৪৪২

  যশোরের আলো
সর্বশেষ:
৪০ শতাংশ সেমিস্টার ফি মওকুফ করা হলো যবিপ্রবির শিক্ষার্থীদের করোনাভাইরাস: দেশে নতুন শনাক্ত ১৯০৮, মৃত্যু ৩৬ রোববার বঙ্গবন্ধু সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন প্রধানমন্ত্রী নওয়াপাড়ায় ৩শ’ দরিদ্রকে কম্বল বিতরণ করলেন যুবলীগ নেতা কুষ্টিয়ায় আরও ৭ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য প্রতিষ্ঠিত হবে: হানিফ চুয়াডাঙ্গা আইনজীবী সমিতি নির্বাচনে আওয়ামী পরিষদের জয় অতিরিক্ত মদপানে ঝিনাইদহে এক দুধ ব্যবসায়ীর মৃত্যু মাগুরায় ট্রাকচাপায় দুই মোটরসাইকেল আরোহী নিহত নড়াইলে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন করলো পিবিআই
৮৩

শেখ হাসিনার বিকল্প কেউ নেই: রওশন এরশাদ

নিউজ ডেস্ক:

প্রকাশিত: ১৬ নভেম্বর ২০২০  

দেশের উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাড়া বিকল্প কাউকে দেখেন না বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় সংসদে বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ। তিনি বলেন, ‘দিন-রাত ২৪ ঘণ্টা তিনি দেশ নিয়ে কাজ করছেন, করেই যাবেন। তিনি ছাড়া বিকল্প কেউ নেই। বিকল্প কাউকে দেখি না। তাকেই এ দেশকে আরও এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য কাজ করতে হবে। চেষ্টা করতে হবে।’

রোববার মুজিববর্ষ উপলক্ষে জাতীয় সংসদের বিশেষ অধিবেশনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে আনা সাধারণ প্রস্তাবের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এ কথা বলেন।

রওশন বলেন, ‘আমরা সংসদ থেকে বাসায় গিয়েই শুয়ে পড়ি। আর প্রধানমন্ত্রী রাত-দিন ২৪ ঘণ্টা কাজ করে চলেছেন। এটা কী করে সম্ভব তা ভেবে আশ্চর্য হয়ে যাই। তিনি দেশ ও দেশের জনগণের জন্য এত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন, দেশকে কীভাবে এগিয়ে নিয়ে যাবেন। দেশ অনেক এগিয়েই গেছে, তার নেতৃত্বে আরও এগিয়ে যাবে, তাতে কোনো সন্দেহ নেই।’

জাতির পিতাকে স্মরণ করে রওশন এরশাদ বলেন, ‘হাজার বছরের পরাধীনতার গ্লানি থেকে দেশ মুক্ত হয়েছে শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে। বঙ্গবন্ধু আমাদের স্বাধীন দেশ দিয়েছেন। তিনি স্বাধীন না করলে স্বাধীন দেশ পেতাম না। সংসদে এসে আমরা সংসদ সদস্য হতাম না। বক্তব্যও দিতে পারতাম না। হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালিকে পেয়েছি, ৫৫ বছর ৫ মাস বাঁচতে দিয়েছি। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ঘাতকের নিষ্ঠুর বুলেটের আঘাতে প্রাণ না হারালে শতায়ু হতে পারতেন।’

তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুকে যারা ইতিহাস থেকে মুছে ফেলতে চেয়েছিল, তারাই ইতিহাস থেকে মুছে গেছে। এটাই ইতিহাসের শিক্ষা।’

১৯৭৪ সালে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে একই বিমানে ভ্রমণের অভিজ্ঞতা তুলে ধরে রওশন বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে সেদিন দেখা না হলে অনুভূতি অসমাপ্ত থেকে যেত। তিনি কত বড় মহান ব্যক্তি তা তুলনা করা যায় না।’ বিরোধীদলীয় নেত্রী জানান, বিমানে বঙ্গবন্ধু তাকে (রওশনকে) ডেকে পাঠান। গিয়ে দেখেন বঙ্গবন্ধু শুয়ে আছেন। তিনি বঙ্গবন্ধুর মাথায় হাত বুলিয়ে দেন।

এদিকে করেনাভাইরাস মহামারিকালে অনুষ্ঠিত সংসদ অধিবেশনগুলোতে অনুপস্থিত থাকলেও বিশেষ অধিবেশনে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় পার্টির নেত্রী রওশন।

  যশোরের আলো
  যশোরের আলো
এই বিভাগের আরো খবর