সোমবার   ০৩ অক্টোবর ২০২২   আশ্বিন ১৭ ১৪২৯   ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

  যশোরের আলো
সর্বশেষ:
যশোরে আগাম শীতকালীন সব‌জি চাষ, ভালো দামে খু‌শি কৃষক দুর্গাপূজা উপলক্ষে বেনাপোলে ৪ দিন বন্ধ আমদানি-রফতানি ঝিনাইদহে ছড়িয়ে পড়ছে লাম্পি স্কিন ডিজিজ, দিশেহারা খামারিরা ঝিনাইদহ পৌরসভার মেয়র ও কাউন্সিলরদের শপথ গ্রহণ জিনপিংকে শুভেচ্ছা জানিয়ে হামিদ-হাসিনার চিঠি যশোর ভবদহের ধলিয়ার বিলে নির্মিত হবে ইপিজেড
১৭৪

`জনপ্রিয়তার কারণে হত্যার শিকার নূর আলী`

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৮ মার্চ ২০২১  

যশোরের অভয়নগর উপজেলার শুভরাঢ়া গ্রামের ইউপি সদস্য নূর আলীর জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে তাকে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষরা বলে অভিযোগ করছেন এলাকাবাসী।

রোববার (৭ মার্চ) রাত সাড়ে আটটার দিকে স্থানীয় বাবুরহাট বাজার এলাকায় মোটরসাইকেলে থাকা অবস্থায় তার মাথায় গুলি করে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় তার ছেলে শরীরের তিন স্থানে গুলিবিদ্ধ হয়ে খুলনা মেডিকেল কলেজে সংকটপূর্ণ অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

জানা গেছে, শুভরাঢ়া ইউনিয়নের দুই নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার নূর আলী শেখ ও তার ছেলে রোববার রাত ৮টার দিকে স্থানীয় বাবুরহাট বাজার থেকে মোটরসাইকেলে বাড়ির দিকে যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে বাজারের অদূরেই অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা তাদের উদ্দেশ্যে গুলি চালায়। গুলি নূর আলীর মাথায় বিদ্ধ হলে তিনি ঘটনাস্থলে মারা যান। তার ছেলে ইব্রাহিমের শরীরে তিনটি গুলি বিদ্ধ হওয়ায় তাকে গুরুতর অবস্থায় তাকে খুলনা আড়াইশ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। 

স্বজন ও স্থানীয়দের দাবি আসন্ন ইউপি নির্বাচনকে সামনে একই দলের প্রতিপক্ষের লোকজন মোটা অংকের টাকা দিয়ে নূর আলী শেখকে হত্যা করিয়েছে।

নিহতের ভাই রুহুল আমিন শেখ বলেন, আমার ভাই জনসেবা করতে গিয়ে খুন হলো। ও কালকে সকালেও আমাকে বলেছে কিছু লোক ওকে খুন করতে চায়। মুরাদ ও মুসা দুইজনে মিলে টাকা দিয়েছে। মুসা গাজী, হুমায়ূন মোল্লা গিয়ে ইকবালকে টাকা দিয়ে এসেছে। আমি ভাইকে সাবধানে চলতে বলি। ওই আমার ভাইয়ের সাথে শেষ কথা। মুসা গাজী মেম্বার পদে দাঁড়াতে চায় ওই আমার ভাইকে খুন করিয়েছে।

তিনি আরও বলেন, নূর আলী ব্যাপক জনপ্রিয় ইউপি সদস্য। আগামীতে ওকে হারানোর মত কোন প্রার্থী নেই। কারণ এই এলাকা সন্ত্রাসী এলাকা ছিল। আমার ভাই নির্বাচিত হওয়ার পর এলাকার সকলকে নিয়ে রাত্রিকালীন ডিউটিসহ নানা উদ্যোগ নিয়ে পরিস্থিতি ভালো করে। যে ডাকতো তার পাশে যেয়ে দাঁড়াত। গরীবদের নিজের পকেটের টাকা দিয়ে সাহায্য সহযোগিতা করতো। এলাকায় ওর থেকে পয়সাআলা লোক মুরাদ, কিন্তু কেউ তাকে মানে না। মুরাদ এলাকায় অশান্তি সৃষ্টি করে। তার পথের কাটা হওয়ায় সে আমার ভাইকে খুন করিয়েছে।

নিহতের স্ত্রী বলেন, আমাদের পাড়ার মুরাদ চার লাখ টাকা দিয়েছে সন্ত্রাসীদের। ইকবাল, মুছা গাজী, হুমায়ুন মোল্লা এরা আমার স্বামীকে হত্যা করেছে। দলাদলি, ভোটে দাঁড়ানো নিয়ে তাকে হত্যা করা হয়েছে। আমার স্বামীর আর কোন দোষ নেই। আমি হত্যাকারীদের ফাঁসি চাই। 

এলাকাবাসীর দাবি, জনপ্রিয়তার কারণেই দলীয় লোকজনের আক্রোশের শিকার হতে হয়েছে মেম্বার নূর আলী শেখকে। ইব্রাহিম আলী নামে একজন বলেন, মেম্বার সাহেব খুব ভালো লোক ছিলেন। এ এলাকায় সন্ত্রাসীদের কারণে আমরা ঘরে থাকতে পারতাম না। মেম্বার গ্রামের সবাইকে নিয়ে এলাকার পরিবেশ ভালো করেছে।

এদিকে পুলিশ এ ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে তিনজনকে হেফাজতে নিয়েছে। তবে পুলিশের ধারণা ব্যক্তিগত শত্রুতার জের ধরে এ হত্যাকাণ্ড ঘটানো হতে পারে।

এ বিষয়ে যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তৌহিদুল ইসলাম বলেন, মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠানো হয়েছে। রাতভর পুলিশ পুরো এলাকায় অভিযান চালিয়েছে। এ ঘটনায় তিনজনকে হেফাজতে নেয়া হয়েছে। আশা করছি তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদে প্রকৃত সত্য বেরিয়ে আসবে।

তিনি আরও বলেন, প্রাথমিক তদন্তের উপর ভিত্তি করে ধারণা করা হচ্ছে পূর্বশত্রুতার জের ধরে হত্যাকাণ্ডটি ঘটানো হয়েছে। তবে সেটা রাজনৈতিক নয়, ব্যক্তিগত শত্রুতা।  

প্রসঙ্গত, দুই পুত্র সন্তানের জনক নূর আলী শেখ এলাকায় একজন সফল কাঠ ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচিত। তিনি ২০১৬ সালের ইউপি নির্বাচনে বিপুল ভোটে জয়লাভ করে দুই নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য নির্বাচিত হন।

  যশোরের আলো
  যশোরের আলো
এই বিভাগের আরো খবর