বৃহস্পতিবার   ১৮ আগস্ট ২০২২   ভাদ্র ২ ১৪২৯   ২০ মুহররম ১৪৪৪

  যশোরের আলো
সর্বশেষ:
উদ্বোধনের অপেক্ষায় দেশের প্রথম ৬ লেনের কালনা সেতু জুলাইয়ে যুক্তরাজ্যে পোশাক রপ্তানি বেড়েছে ৩৩ শতাংশ ৪ কোটি ২১ লাখ মানুষ পেয়েছে বুস্টার ডোজ নড়াইলে পাটের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা চৌগাছায় বেশি দামে তেল বিক্রি করায় ২৫ হাজার টাকা জরিমানা শেখ হাসিনার নেতৃত্ব অনুকরণীয়: এমপি নাবিল প্রয়োজনে বিদেশ থেকে ডিম আমদানি করা হবে : বাণিজ্যমন্ত্রী বিদ্যুৎ-জ্বালানির দাম সহনীয় করা হবে: জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী
৩৩

ব্যক্তি পুলিশের দায় বাহিনী নেবে না: আইজিপি

প্রকাশিত: ১ জুলাই ২০২২  

পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদ বলেছেন, ‘ব্যক্তি পুলিশের অপরাধের কোনো দায় পুরো বাহিনী কখনো নেবে না। পুলিশ বাহিনী কোনো খারাপ কাজ করে খবরের শিরোনাম হতে চায় না, বরং সাফল্যের মাধ্যমে সংবাদের শিরোনাম হতে চায়।’

বৃহস্পতিবার সকালে রাজশাহীর সারদায় বাংলাদেশ পুলিশ অ্যাকাডেমিতে ১৬৪তম ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল (টিআরসি) ২০২১ ব্যাচের ছয় মাস মেয়াদি মৌলিক প্রশিক্ষণ সমাপনী কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।

ড. বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘পুলিশ সদস্যদের আধুনিকায়নে অপরাধী শনাক্তে ও মামলা তদন্তে প্রকৃত তথ্য উদঘাটনের লক্ষ্যে বাংলাদেশ পুলিশের সাইবার সেন্টার, ডিএনএ ল্যাব, পুলিশ সদস্যদের কল্যাণের জন্য পুলিশ কল্যাণ ট্রাস্ট, পুলিশের সেবা জনগণের দৌরগোড়ায় পৌঁছে দিতে বিট পুলিশিং, কমিউনিটি পুলিশিং গঠন করা হয়েছে। জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে পুলিশ প্রশংসনীয় ভূমিকা পালন করেছে।’

টিআরসিদের সততা ও নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালনের পরামর্শ দিয়ে আইজিপি বলেন, পুলিশ বাহিনীর কেউ অন্যায় করলে তার দায় অন্যায়কারীর নিজের, বাহিনীর নয়।

তিনি আরো বলেন, ‘পুলিশ বাহিনীর দায়িত্ব জনগণকে সেবা করা, জনগণকে ভালোবাসা, দুর্দিনে সাহায্য করা। পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় জনগণের মৌলিক অধিকার ও আইনের শাসনকে সর্বাধিক গুরুত্ব দেয়া।’

বেনজীর আহমেদ বলেন, বাংলাদেশ পুলিশ শুধু একটি প্রতিষ্ঠান নয়, বাংলাদেশ পুলিশ গৌরবের নাম। দেশের সব অর্জনে বাংলাদেশ পুলিশ অনন্য ভূমিকা পালন করে আসছে। শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষা, অপরাধ দমন, জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস নির্মূলে বাংলাদেশ পুলিশের অবদান এক কথায় অপরিসীম।

আইজিপি বলেন, বাংলাদেশ পুলিশ সবসময় জনগণের প্রয়োজনে পাশে থেকে সততা ও নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করেছে। করোনাকালে যখন স্বামী স্ত্রীকে ছেড়ে চলে গেছে, স্ত্রী স্বামীকে ছেড়ে গেছে, ছেলে বাবাকে ছেড়ে গেছে, মেয়ে মাকে ছেড়ে গেছে; তখনো বাংলাদেশ পুলিশের সদস্যরা ওই সব মানুষের পাশে থেকেছে। তাদের দেখাশুনা করেছে, নানাভাবে সহায়তা করেছে, মানুষের প্রয়োজনের স্বার্থে নিজেদের জীবনবাজি রেখে দায়িত্ব পালন করেছে। এ জন্য ১০৬ জন পুলিশ সদস্যকে জীবনও দিতে হয়েছে।

ড. বেনজীর আহমেদ বলেন, সমাজের চাহিদার স্বার্থে আমরা ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টার চালু করেছি। যেখানে প্রতি মাসে হাজার হাজার ভিকটিমকে সহায়তা দিচ্ছি। জরুরি মুহূর্তে পুলিশের সহায়তা পেতে ৯৯৯ সেবা চালু করেছি। এর মাধ্যমে জনগণ দ্রুত পুলিশের সেবা গ্রহণ করতে পাচ্ছে।

পরিবর্তনশীল সমাজ ও অপরাধের ব্যাপারে তিনি বলেন, সমাজ পরিবর্তনশীল। সমাজে সঙ্ঘটিত অপরাধও পরিবর্তনশীল। তাই নতুন নতুন চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে পুলিশ বাহিনিতে নতুন প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে। প্রযুক্তির সাহায্যে সাইবার অপরাধ দমনে পুলিশ অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে। 

টিআরসিদের উদ্দেশে আইজিপি বলেন, তরুণ সমাজকে যেকোনো মূল্যে রক্ষা করতে হবে। সেই সাথে সব ধরনের উগ্রবাদ ও সন্ত্রাস নির্মূলে তোমাদের প্রস্তুত থাকতে হবে। এ জন্য শুধু মৌলিক প্রশিক্ষণের ওপর নির্ভর করলে চলবে না। নিত্য নতুন কলাকৌশল সম্পর্কে ধারণা লাভ করতে হবে, যাতে দেশের স্বার্থে কাজ করা যায়।

এর আগে আইজিপি টিআরসিদের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত কুচকাওয়াজ প্রদর্শন ও অভিবাদন গ্রহণ করেন। বাংলাদেশ পুলিশ অ্যাকাডেমি সারদায় ১৬৪তম ব্যাচের ৪৫৩ জন শিক্ষানবিশ কনস্টেবল ছয় মাস মেয়াদি মৌলিক প্রশিক্ষণ নিয়েছেন। কুচকাওয়াজ শেষে প্রশিক্ষণে বিভিন্ন বিষয়ে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনকারী তিনজনকে ক্রেস্ট এবং টিআরসিদের মধ্যে সনদপত্র বিতরণ করেন আইজিপি।

  যশোরের আলো
  যশোরের আলো
এই বিভাগের আরো খবর