সোমবার   ০৩ অক্টোবর ২০২২   আশ্বিন ১৭ ১৪২৯   ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

  যশোরের আলো
সর্বশেষ:
যশোরে আগাম শীতকালীন সব‌জি চাষ, ভালো দামে খু‌শি কৃষক দুর্গাপূজা উপলক্ষে বেনাপোলে ৪ দিন বন্ধ আমদানি-রফতানি ঝিনাইদহে ছড়িয়ে পড়ছে লাম্পি স্কিন ডিজিজ, দিশেহারা খামারিরা ঝিনাইদহ পৌরসভার মেয়র ও কাউন্সিলরদের শপথ গ্রহণ জিনপিংকে শুভেচ্ছা জানিয়ে হামিদ-হাসিনার চিঠি যশোর ভবদহের ধলিয়ার বিলে নির্মিত হবে ইপিজেড
৬৬

সাশ্রয়ী মূল্যে করোনা শনাক্তের কিট আবিষ্কার

নিউজ ডেস্ক:

প্রকাশিত: ৭ আগস্ট ২০২২  

সাশ্রয়ী মূল্যে করোনাভাইরাস শনাক্তের কিট তৈরি করেছে বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদ (বিসিএসআইআর)। এই প্রথম দেশীয় কোনো সংস্থা করোনা শনাক্তের আরটিপিসিআর কিট তৈরি করল।

এর মাধ্যমে নামমাত্র খরচে সন্দেহজনক ব্যক্তি এই ভাইরাসে আক্রান্ত কিনা, জানা যাবে। বাজারে এলে একটি কিটের দাম পড়বে ২৫০ টাকা। বর্তমানে সরকারিভাবে প্রতি পরীক্ষায় ব্যয় হয় প্রায় ৫ হাজার টাকা। দেশীয় এই কিট দিয়ে চার থেকে পাঁচ ঘণ্টায় করোনার প্রাথমিক উপস্থিতি নিশ্চিত করা সম্ভব হবে। বিসিএসআইআরের বিজ্ঞানীদের দীর্ঘ এক বছরের গবেষণার ফসল এই কিট। এখন দেশীয় কোনো প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান দিয়ে কিটটি উৎপাদন করা সম্ভব হবে।

বিসিএসআইআর চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. আফতাব আলী শেখ বলেন, এটি একটি অভাবনীয় আবিষ্কার। ফলে এখন দেশের মানুষ স্বল্পমূল্যে করোনা পরীক্ষা করতে পারবেন। ইতোমধ্যে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর এই কিট উৎপাদনের অনুমোদন দিয়েছে। এছাড়া বাংলাদেশ মেডিকেল গবেষণা পরিষদ এই কিটের এথিকেল ক্লিয়ারেন্স দিয়েছে।

দেশে করোনা শনাক্তে এখন দুই ধরনের কিট ব্যবহার হয়। একটি হচ্ছে- অ্যান্টিজেন টেস্ট আর অন্যটি পিসিআর টেস্ট। এই পরীক্ষায় কিটে রোগীর নমুনা দিয়ে একটি মেশিনের মধ্যে রাখতে হয়, ঠিক যে পদ্ধতিতে হেপাটাইটিস 'এ', 'বি' ও 'সি' ভাইরাসের পরীক্ষা হয়ে থাকে। এ ক্ষেত্রে চার থেকে পাঁচ ঘণ্টা সময় লাগে, খরচও অনেক বেশি।

এর আগে দেশে করোনা সংক্রমণের শুরুর দিকে দেশীয় প্রতিষ্ঠান হিসেবে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র অ্যান্টিজেন কিট তৈরির ঘোষণা দেয়। তবে নানা জটিলতা ও সংকটের কারণে এই কিট আলোর মুখ দেখেনি।

  যশোরের আলো
  যশোরের আলো
এই বিভাগের আরো খবর