মঙ্গলবার   ০৯ আগস্ট ২০২২   শ্রাবণ ২৪ ১৪২৯   ১০ মুহররম ১৪৪৪

  যশোরের আলো
সর্বশেষ:
যশোরের পুলিশ সুপারসহ ৪ পুলিশ কর্মকর্তাকে পুরস্কৃত বাংলাদেশকে ৩০ কোটি ডলার ঋণ দিচ্ছে বিশ্বব্যাংক বিভিন্ন রুটে ভাড়ার নতুন তালিকা প্রকাশ করলো বিআরটিএ ঝিনাইদহে কৃষকের মাঝে কৃষি-পল্লী ঋণ বিতরণ দেশীয় কিটে ২৫০ টাকায় করা যাবে করোনা পরীক্ষা গম-ভুট্টা চাষিরা কম সুদে পাবেন ১ হাজার কোটি টাকার ঋণ
৫৬

বেনাপোল পৌর পরিষদ বিলুপ্ত, বর্তমান প্রশাসক ইউএনও

প্রকাশিত: ২৯ এপ্রিল ২০২২  

যশোরের বেনাপোল পৌরসভায় প্রশাসক হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন শার্শা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নারায়ন চন্দ্র পাল। বুধবার (২৭ এপ্রিল) মেয়র আশরাফুল আলম লিটনসহ পৌর পরিষদ বিলুপ্ত ঘোষণা করে প্রশাসক পদে তাকে নিয়োগ প্রদান করে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগ পৌর-১ শাখা প্রজ্ঞাপন জারি করে।

মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব মোহাম্মদ ফারুক হোসেন স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়েছে, স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) আইন, ২০০৯ এর ধারা ৪২ এর সংশোধনক্রমে স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) (সংশোধন) আইন ২০২২ এর ধারা ৯ অনুযায়ী পৌর পরিষদ বিলুপ্ত ঘোষণা করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে প্রশাসক হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হলো। সংশ্লিষ্ট বিধি বিধান অনুযায়ী নিয়োগকৃত প্রশাসক পৌরসভার সার্বিক দায়িত্ব পালন করবেন।

২০০৬ সালে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় বেনাপোল ইউনিয়নের ১১টি গ্রামের অংশ নিয়ে (৮.৬০ বর্গ মিটার আয়তনে) বেনাপোলকে তৃতীয় শ্রেণির পৌরসভা হিসেবে ঘোষণা করে। ২০০৬ সালের ১৬ এপ্রিল বেনাপোল পৌরসভার প্রশাসক হিসেবে নিয়োগ পান বিএনপি নেতা শামছুর রহমান। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে তাকে সরিয়ে শার্শা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বশীর আহমদকে প্রশাসকের দায়িত্ব দেওয়া হয়।

এরপর পর্যায়ক্রমে দায়িত্ব পালন করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ড. আব্দুল হাকিম ও কামরুল আরিফ। ২০১০ সালের ১ ডিসেম্বর বেনাপোল পৌরসভাকে তৃতীয় শ্রেণি থেকে দ্বিতীয় শ্রেণিতে উন্নীত করা হয়। এরপর ২০১১ সালের ১৩ জানুয়ারি প্রথমবারের মতো নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ভোটে আশরাফুল ইসলাম লিটন মেয়র নির্বাচিত হন।

বিজ্ঞপ্তি।

২০১১ সালের ২০ সেপ্টেম্বর স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় থেকে বেনাপোল পৌরসভা প্রথম শ্রেণির মর্যাদা পায়। ৫ বছর পর ২০১৬ সালের ১৩ জানুয়ারি পৌরসভার মেয়াদ উত্তীর্ণ হলেও সীমানা সংক্রান্ত জটিলতায় সেখানে এতদিন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়নি। ফলে মেয়র হিসেবে আশরাফুল আলম লিটন দায়িত্ব পালন করতে থাকেন। এভাবে মেয়াদ উত্তীর্ণের পর সাত বছর বাড়তি দায়িত্ব পালন করেন তিনি।

  যশোরের আলো
  যশোরের আলো
এই বিভাগের আরো খবর