সোমবার   ০৮ আগস্ট ২০২২   শ্রাবণ ২৪ ১৪২৯   ১০ মুহররম ১৪৪৪

  যশোরের আলো
সর্বশেষ:
বর্তমান বিশ্ব পরিস্থিতিতে যে কারণে তেলের দাম বৃদ্ধি যৌক্তিক খুলনা-যশোর অঞ্চলে ১৭১ রেলগেটের ৯৮টি অরক্ষিত যশোরে এক মাসে হারানো ৪৯টি মোবাইল উদ্ধার বেনাপোলে পণ্য আমদানিতে অভাবনীয় গতি বাস-মিনিবাসের ভাড়া পুনঃনির্ধারণ করে প্রজ্ঞাপন জারি
৭১

পদ্মা সেতু উন্নয়নের স্বর্ণদুয়ার উন্মোচন করেছে: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত: ১ জুলাই ২০২২  

পদ্মা সেতু নির্মাণে উন্নয়নের স্বর্ণদুয়ার উন্মোচিত হয়েছে। এ সেতুতে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলার যোগাযোগব্যবস্থার আমূল পরিবর্তন হবে। দেশের অর্থনীতিতে বড় ধরনের ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে এ সেতু। বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবে। বাঙালি জাতিকে কেউ পিছিয়ে রাখতে পারবে না।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে গতকাল একাদশ সংসদের বাজেট অধিবেশনের সমাপনী বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন। এর আগে সর্বসম্মতিক্রমে সংসদে চলতি বছরের নির্দিষ্টকরণ বিল পাস হয়।

পরে স্পিকার সংসদের সমাপনী-সংক্রান্ত রাষ্ট্রপতির আদেশ পাঠ করে শোনান। বন্যাদুর্গত সিলেট  অঞ্চলে ত্রাণ ও পুনর্বাসনে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সিলেট বিভাগ ও নেত্রকোনা জেলায় বন্যার ক্ষতি কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা চলছে। ইতোমধ্যে ক্ষতিগ্রস্তদের প্রয়োজনীয় ত্রাণ দেওয়া হয়েছে। চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। পুনর্বাসন কাজও চলছে।

তিনি বলেন, ‘দেশের দক্ষিণাঞ্চলে বন্যার আশঙ্কা রয়েছে। দক্ষিণাঞ্চলে বন্যা আসে ভাদ্র মাসের দিকে। সরকার সে বন্যা মোকাবিলায় প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে। এ বন্যাও আমরা মোকাবিলা করতে পারব।’ 

পদ্মা সেতু এ বন্যা মোকাবিলায় সহায়তা করবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘পদ্মা সেতু নির্মাণে উন্নয়নের স্বর্ণদুয়ার উন্মোচন হয়েছে। পদ্মা সেতুর ব্যয় নিয়ে অনেকে প্রশ্ন তুলেছেন। কিন্তু বাস্তবতা পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, এ ব্যয় তুলনামূলক বেশি নয়। ১৯৯৭ সালে আমি যখন জাপান গিয়েছিলাম, তখন পদ্মা সেতু ও রূপসা সেতু নির্মাণের বিষয়ে আলোচনা করি। ওই সময় রূপসা সেতু নির্মাণ হলেও পদ্মা সেতু হয়নি। পরে আবারও ক্ষমতায় এসে এ সেতু নির্মাণের উদ্যোগ নিই।’ 

তিনি বলেন, ‘বিশ্বব্যাংক পদ্মা সেতুতে অর্থায়ন থেকে সরে গেলে আমরা নিজস্ব অর্থায়নে এ সেতু নির্মাণের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। সংসদে এ ঘোষণা দেওয়ার পর জনগণের ব্যাপক সাড়া পাই। সব শেষে সেতু নির্মাণে সফল হয়েছি।’ সরকারপ্রধান বলেন, লঞ্চ ও ট্রেনে অগ্নিকাণ্ডসহ সব দুর্ঘটনা মোকাবিলা করেছে সরকার। 

ওই সব ঘটনার তদন্তও চলছে বলে তিনি উল্লেখ করেন। সংসদের বাজেট অধিবেশন প্রাণবন্ত ছিল উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলনে, ‘এ অধিবেশনে বিরোধী দলকে যথেষ্ট সুযোগ দেওয়া হয়েছে। বিশেষ করে বিএনপি নেতারা যথেষ্ট বক্তব্য রাখার সুযোগ পেয়েছেন। ইচ্ছামতো তারা কথা বলার সুযোগ পেয়েছেন। আর আমাদের যারা অফিশিয়াল বিরোধী দল, তারাও আলোচনা করেছেন। অধিবেশনে ২২৮ জন সংসদ সদস্য বাজেট আলোচনায় অংশ নিয়েছেন। ৩৮ ঘণ্টা ৫৭ মিনিটি আলোচনা হয়েছে।’ 

আলোচনায় অংশ নেওয়ার জন্য বিরোধীদলীয় নেতাসহ সব সংসদ সদস্যকে ধন্যবাদ জানান তিনি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের বড় একটা অর্জন আমরা করেছি। ২৫ জুন আমাদের সেতু, পদ্মা সেতু উদ্বোধন করেছি। পদ্মা সেতু শুধু দক্ষিণাঞ্চলের যোগাযোগ নয়, অর্থনৈতিকভাবে বাংলাদেশ যাতে আরও উন্নত হতে পারে সেটার স্বর্ণদুয়ার উন্মোচন হয়েছে। 

তিনি বলেন, ২০০৫ থেকে ২০০৭ সালের দিকে আমাদের তখনকার অর্থনীতির অবস্থা এত গতিশীল ছিল না, শক্ত ছিল না। বর্তমানে যে অর্থনৈতিক অবস্থা তাতে আমরা অনেক উন্নত হয়েছি। ভবিষ্যতে আরও বেশি সমৃদ্ধ হব। জিডিপি প্রবৃদ্ধি আরও পরিবর্তন হবে বলে বিশ্বাস করি। 

এ সময় পদ্মা সেতুর ব্যয় ২০ বছরেই উঠে আসবে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ফিজিবিলিটি স্ট্যাডিজে টোল আদায়ের যে প্রজেকশন ছিল সে অনুসারে ২৫ থেকে ২৬ বছরে সেতুর খরচ উঠে আসবে। কিন্তু এ সেতুর টাকা আরও অনেক আগে তুলে ফেলতে পারব। তিনি বলেন, আমাদের নিজস্ব অর্থায়নে এ সেতু নির্মাণ করা হয়। এটা সম্পূর্ণ আমাদের নিজেদের টাকা, বাংলাদেশের টাকা। এ সেতুর মাধ্যমে যোগাযোগ আরও বিস্তৃত হবে। 

১৮-২০ বছরের মধ্যে এ টাকা উঠে আসবে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, সেতু কর্তৃপক্ষ অর্থ বিভাগের সঙ্গে চুক্তি সম্পাদন করেছে। চুক্তি অনুসারে ১ শতাংশ হারে সুদে ২৫ বছরে সেতুর খরচ সরকারকে ফেরত দেবে। সেই চুক্তি করেই বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ সরকারের কাছ থেকে এ টাকা ঋণ নিয়েছে। 

পদ্মা সেতু নির্মাণের বিশদ বর্ণনা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, পদ্মা সেতুর সফল সমাপ্তিতে আমাদের বেশ কিছু প্রাপ্তি যোগ হবে। জাতিকে মতপার্থক্য ভুলে একতাবদ্ধ হওয়ার অনুপ্রেরণা জোগাবে। নিজেদের আত্মসম্মানবোধে সচেতন করে তুলবে। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সামনে আমাদের মর্যাদা বৃদ্ধি পাবে। উন্নয়ন সহযোগীদের সঙ্গে আলোচনা ও চুক্তি সম্পাদনে স্বকীয়তা বজায় রাখতে উদ্বুদ্ধ করবে। যে কোনো মেগা প্রজেক্ট বাস্তবায়নে আমাদের ব্যবস্থাগত ত্রুটি অভিজ্ঞতার ঘাটতি পূরণ করবে।

তিনি বলেন, এশিয়ান হাইওয়ে বাস্তবায়নে যে মিসিং লিঙ্ক ছিল সেটা পদ্মা সেতু। সেই মিসিং লিঙ্ক পূরণ করে সরাসরি সড়ক যোগাযোগমাধ্যম হিসেবে কাজ করবে। একটা অবকাঠামো এত বেশি ফরওয়ার্ড লিঙ্কেজ সত্যি বিস্ময়কর। এশিয়ান হাইওয়ে ও ট্রান্স এশিয়ান রেলওয়ে বাস্তবায়ন যখন হবে পদ্মা সেতু একমাত্র লিঙ্ক হবে। 

এ সেতু হাইওয়ে এবং রেল লিঙ্কের ক্ষেত্রে পূর্ব দিকে ভারত, মিয়ানমার, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া থেকে সিঙ্গাপুর পর্যন্ত সংযুক্ত হবে। অন্যদিকে ভারত, পাকিস্তান, আফগানিস্তান, ইরান, তুরস্ক, ইউরোপের সঙ্গেও সংযুক্ত হওয়ার ক্ষেত্রে আর কোনো বাধা থাকবে না। এ যোগাযোগব্যবস্থা দেশে আমদানি-রপ্তানি ও অর্থনৈতিক উন্নয়নে নতুন দিগন্তের সূচনা করবে। 

তিনি বলেন, নেপাল-ভুটানের সঙ্গে যোগাযোগ আরও বাড়বে। দেশের উন্নয়ন প্রক্রিয়ায় বড় বাধা ছিল প্রমত্তা পদ্মা। কৃষক-ব্যবসায়ী কেউ নিজ নিজ পণ্য বাজারজাতকরণ বা সঠিক মূল্য পেত না। পদ্মা সেতু সে অবস্থার আমূল পরিবর্তন নিয়ে আসবে। বাংলাদেশ বিশ্বে নতুন উচ্চতায় নিজেদের স্থান করে নিয়েছে এ সেতুর মাধ্যমে। আগে যারা অবহেলার চোখে দেখত এখন দেখে না, দেখবে না। উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে যাব আমরা।

  যশোরের আলো
  যশোরের আলো
এই বিভাগের আরো খবর