মঙ্গলবার   ০৯ আগস্ট ২০২২   শ্রাবণ ২৪ ১৪২৯   ১০ মুহররম ১৪৪৪

  যশোরের আলো
সর্বশেষ:
যশোরের পুলিশ সুপারসহ ৪ পুলিশ কর্মকর্তাকে পুরস্কৃত বাংলাদেশকে ৩০ কোটি ডলার ঋণ দিচ্ছে বিশ্বব্যাংক বিভিন্ন রুটে ভাড়ার নতুন তালিকা প্রকাশ করলো বিআরটিএ ঝিনাইদহে কৃষকের মাঝে কৃষি-পল্লী ঋণ বিতরণ দেশীয় কিটে ২৫০ টাকায় করা যাবে করোনা পরীক্ষা গম-ভুট্টা চাষিরা কম সুদে পাবেন ১ হাজার কোটি টাকার ঋণ
৫৭

খেতের পোকা দমনে কেশবপুরের কৃষকদের আলোক ফাঁদ প্রদান

প্রকাশিত: ২৪ জুন ২০২২  

খেতের পোকা দমনের জন্য যশোরের কেশবপুরের ২৫ জন কৃষককে আলোক ফাঁদ দেয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) উপজেলা পরিষদ চত্বরে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদ্যোগে ওই আলোক ফাঁদ দেয়া হয়। 

আলোক ফাঁদ স্থাপনের মাধ্যমে ধান ও সবজি খেতে ক্ষতিকর কী ধরনের পোকা রয়েছে; সেটি শনাক্ত করা যাবে। এর ফলে কীটনাশকের ব্যবহার কমিয়ে খেতের ফসল সুরক্ষা করা সম্ভব হবে।

কেশবপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এম এম আরাফাত হোসেনের সভাপতিত্বে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী রফিকুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ঋতুরাজ সরকার, কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মনির হোসেন ও সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলাউদ্দীন আলা।

আলোক ফাঁদ পেয়ে উপজেলার আলতাপোল গ্রামের কৃষক আব্দুল আজিজ বলেন, ‘আগে কখনো আলো দিয়ে ধান খেতে ফাঁদ পেতে পোকা মারিনি। কৃষি অফিসের পরামর্শে এবার আলোক ফাঁদ ব্যবহার করে খেতে পোকার উপস্থিতি বুঝে ক্ষতিকর পোকা দমন করে ফসল সুরক্ষা ও উৎপাদন করবো’।

কেশবপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ঋতুরাজ সরকার বলেন, লোহার খাঁচা, প্লাস্টিকের গামলা ও বাল্ব দিয়ে একটি নির্দিষ্ট ডিজাইনে মজবুত করে তৈরি করা আলোক ফাঁদ ২৫ জন কৃষকের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে। 

রাতের বেলায় ধান ও সবজি খেতে আলোক ফাঁদ স্থাপন করে কৃষকেরা খুব সহজেই পোকা শনাক্ত ও দমন করতে পারবে। মাঠ পর্যায়ে কৃষকদের এ বিষয়ে ধারণা দেয়া হয়েছে। বর্তমানে কীটনাশকের ব্যবহার কমিয়ে খেতের ফসল সুরক্ষায় আলোক ফাঁদ প্রযুক্তি জনপ্রিয় হয়ে উঠছে।

  যশোরের আলো
  যশোরের আলো
এই বিভাগের আরো খবর